মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১২:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
৪৫ কোটি টাকার রাস্তা আড়াই বছরেও শেষ হয়নি ৫ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার খুটাখালীতে স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সের সীমানা-প্রাচীরের একাংশ ভেঙ্গে পড়েঃআরো ভাঙ্গার সম্ভাবনা ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত! মাতারবাড়ীর “তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসা”সুপার নিয়ম মানছেনা,রশিদ না কেটে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ! ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়, আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা কুতুবদিয়ায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ৬ শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ কক্সবাজার জেলা শাখার পরিচিতি সভা সম্পন্ন ঈদগাঁওতে ফার্নিচার কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড -কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে ২ শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের অভিযোগ, অভিযুক্ত শিক্ষক লাপাত্তা ট্যুরিস্ট পুলিশের অভিযানে ছিনতাইকারী সহ আটক-৮

স্বেচ্ছায় বাঁধ নির্মানে কাজ করছে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫১১ বার পঠিত

সংবাদ বিজ্ঞিপ্ত।।
দীর্ঘ দেড় যুগ ধরে রামুর জোয়ারিয়ানালার নুনাছড়ির ফারি খাল ঘেষে ভেঙ্গে পড়া বেড়িবাঁধ নির্মাণে কাজ করছে ছাত্রলীগের এক ঝাঁক তরুন।জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের নির্দেশে গত তিনদিন ধরে এই বাঁধ নির্মাণের কাজ চলমান আছে।
জোয়ার এলেই খালের নোনাজল বাঁধ ভেঙ্গে ঢুকে পড়ে ঐ গ্রামের কৃষি জমিতে।ফলে ৪টি চিংড়ি ঘের ও ৩০০ একর কৃষি জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয় বলে জানান স্থানীয় কৃষক।
গত ৬ এপ্রিল ক্ষতিগ্রস্থ কৃষি জমি পরিদর্শনে গিয়ে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইন বলেন, ” আমার গ্রামের এই বেড়িবাঁধ নির্মানে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাব। প্রয়োজনে ঠেকসই বাঁধ নির্মাণে বিলম্ব হলে আমার ছাত্রলীগের সহযোদ্ধাদের নিয়ে স্বেচ্ছায় বাঁধ নির্মাণে কাজ করবে।”
সেই কথার প্রেক্ষিতে গ্রামের মানুষের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ দূর করতে স্বেচ্ছায় বাঁধ নির্মানে কাঁদাপানিতে নেমে পড়ে এক ঝাক ছাত্রলীগ। এতে গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত রুস্তম আলী ছাত্রলীগ সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, ” আমরা কখনো এমন ছাত্রলীগ দেখি নাই যারা বাঁধ নির্মাণে সরাসরি কাঁদাপানিতে নেমে পড়ে। সাদ্দাম আমাদের জীবন ও জীবিকা কে পরিবর্তন করে দিল।”
গত ৬ এপ্রিল জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইন, স্থানীয় চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দীন প্রিন্স, স্থানীয় সমাজসেবক আবছার কামাল সিকদার সহ স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ঐ ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শনে যান।
এই বিষয়ে এস এম সাদ্দাম হোসাইন জানান, ” বেড়িবাঁধ নির্মানে ছাত্রলীগের পাশাপাশি ২০জন শ্রমিক ও নিয়োগ দেওয়া হয়। যাতে স্থায়ী ভাবে না হলেও বেড়িবাঁধটি ঠেকসই হয়।
এছাড়া তিনি আরো বলেন, স্থায়ী ও ঠেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণে ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছেন তিনি।
তবে গ্রামীন মানুষের এই দুঃখ লাগবে স্থায়ী ও ঠেকসই বেড়িবাঁধ নির্মান বড় প্রয়োজন বলে জানান গ্রামবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs