মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ১২:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের পরীক্ষা স্থগিত মহেশখালীতে পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার কক্সবাজারে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ,ভাংচুর অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সকল ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কুতুবদিয়ার মাছ ধরার ট্রলার ডুবি: মাঝিমাল্লা উদ্ধার মহেশখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গ্যারেজ মালিক মামুনের মৃত্যু মাতারবাড়ীতে ৫শ মেগাওয়াটের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র করবে ইন্দোনেশিয়া “অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে” উত্তরণ মডেল স্কুল ও কলেজে কিশোর কিশোরীদের দক্ষতা উন্নয়নে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে জলবায়ু ন্যায্যতা ও লিঙ্গ ভিত্তিক সহিংসতা বিষয়ে সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত রামুতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নতুন ভবন ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন হুইপ সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি

শহরে বেড়েছে বখাটেদের উৎপাত: ইভটিজিং এর শিকার শিক্ষার্থীরা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৮ নভেম্বর, ২০২১
  • ৪৫২ বার পঠিত

সরওয়ার সাকিব।
কক্সবাজার শহরে দিন দিন বেড়েই চলেছে বখাটেদের দৌরাত্ম্য। প্রতিদিন শহরের স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরা ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে। এমনকি বাহির থেকে বেড়াতে আসা বিভিন্ন শ্রেনীর মেয়েরাও ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে। ভুক্তভোগী পরিবার ও শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানতে পারি কক্সবাজার পৌর শহরের বাজারঘাটা, বার্মিজ মার্কেট, গোলদীঘির পাড়, বৌদ্ধমন্দির সড়ক, টেকপাড়া, শহীদ তিতুমীর স্কুল রোড, বায়তুশ শরফ রোড, কলাতলী রোড, কালুর দোকান, তারাবনিয়ারছড়া, বাহারছড়া, নুনিয়ারছড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বেড়ে গেছে ইভটিজিং। যার ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে স্কুল থেকে শুরু করে কর্মজীবী নারীরা। আর মানসিক অস্থিরতায় ভুগছে মেয়েদের পরিবার। অভিভাবকরা বলছেন তারা প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠু সমাধানের জন্য আবেদন করেও প্রতিকার পাচ্ছেননা।
এদিকে কক্সবাজার বিমান বন্দর মহিলা কলেজ সংলগ্ন সড়কে পাশাপাশি ৪ টি স্কুল -কলেজ হওয়াই শিক্ষার্থীদের আনাগোনা একটু বেশি। যার কারণে বখাটেরা ওই স্থানে আড্ডা দেয় বলে জানান ভুক্তভোগীরা। এসব ঘটনায় বখাটেদের পরিবারে বিচার দেওয়ার পর ছাত্রীদের পরিবার আরো হয়রানির মুখে পড়ছেন। সম্প্রতি কিছুদিন আগে বিমান বন্দর সড়ক মহিলা কলেজের সামনে বখাটেদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় হামলার শিকারের ঘটনা ঘটেছে । প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কথিত ভদ্র ঘরের সন্তানরা এই টিজিং করতেছেন। সৈকত বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জানান আমি এবং আমার বান্ধবীরা স্কুল যাওয়ার পথে কিছু বখাটে আমাদের পিছু নেই। কাগজ ছুড়ে মারে এবং গা ঘেঁষে হাটার চেষ্টা করে। কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজে শিক্ষার্থী জানান কলেজ প্রবেশের পথে কিছু বখাটে আমাদের খারাপ উক্তি করে ঐসব কথা শুনতে খুব খারাপ লাগে। বাসায় বলিনা কারণ বাবা-মা চিন্তা করবে। এদিকে বখাটে ও ইভটিজারদের ব্যাপারে অহরহ অভিযোগ দিলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন প্রতিকার পাচ্ছেননা বলে জানান অভিবাবকরা।
বখাটেপনার এসব ঘটনায় অনেক অভিভাবকই এখন আতঙ্কিত। কেউ কেউ নিজেই মেয়েকে নিয়ে স্কুলে যাচ্ছেন। আবার কেউবা স্কুলে পাঠানো বন্ধ করে বাসায়ই পড়াচ্ছেন। বর্তমানে শহরের বিমান বন্দর সড়ক, সরকারী কলেজ রোড, বাসটার্মিনাল মহিলা মাদ্রাসা এলাকায় স্কুল কলেজের মেয়েরা বখাটেপনার শিকার হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। সচেতন মহল মনে করেন যদি ইভটিজিং বন্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে নিরাপত্তা ঝুঁকিতে এবং মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়বেন শিক্ষার্থীদরা। শিক্ষার্থীদের দাবি স্কুল-কলেজের সামনে যাতে প্রশাসনিক তৎপরতা বাড়ানো হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs