মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০১:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
৪৫ কোটি টাকার রাস্তা আড়াই বছরেও শেষ হয়নি ৫ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার খুটাখালীতে স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সের সীমানা-প্রাচীরের একাংশ ভেঙ্গে পড়েঃআরো ভাঙ্গার সম্ভাবনা ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত! মাতারবাড়ীর “তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসা”সুপার নিয়ম মানছেনা,রশিদ না কেটে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ! ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়, আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা কুতুবদিয়ায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ৬ শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ কক্সবাজার জেলা শাখার পরিচিতি সভা সম্পন্ন ঈদগাঁওতে ফার্নিচার কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড -কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে ২ শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের অভিযোগ, অভিযুক্ত শিক্ষক লাপাত্তা ট্যুরিস্ট পুলিশের অভিযানে ছিনতাইকারী সহ আটক-৮

রামুতে বিদ্যালয়ের কাজ ফেলে উধাও ঠিকাদার : অনিশ্চতায় পাঠদান কার্যক্রম

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২২১ বার পঠিত

মোঃ সাইদুজ্জামান সাঈদ।
রামু উপজেলা আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। আঙিনায় প্রবেশ করতেই মনে হবে গোয়াল ঘর এবং আরেকটু সামনে এগিয়ে গেলে মনে হয় মাছ চাষের পুকুর।

দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত সরকারি এই স্কুলটি ২০২০ সালে চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের অধীন প্রায় এক কোটি পঁচিশ লাখ তেয়াল্লিশ হাজার টাকা বরাদ্দে চট্টগ্রামের একটি নামস্বর্বস্ব ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান আলি আঁখি আল আমিনকে বিদ্যালয় ভবন নির্মাণের কাজ দেওয়া হয়।

প্রকল্প বাস্তবায়নের সময়সীমা ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২১ সালের জুলাই বেঁধে দেওয়া হলেও এখনো ভবনের ৫ শতাংশ কাজও হয়নি। ফলে পাঠদান নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। দেখা গেছে, বিদ্যালয় ভবন নির্মাণের জন্য বিশাল একটি গর্ত খুঁড়ে রাখা হয়েছে এবং বেজমেন্ট ঢালাই দেওয়ার পর আর কাজ করেন নি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ফলে পানি জমে গেছে গর্তটিতে।

প্রকল্পের সঠিক সময় পার হলেও এখনো কোন কাজ শেষ হয়নি কেন জানতে চাইলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা মো: সেকেন্দার বলেন, ব্যাংক গ্যারান্টির মেয়াদ শেষ হওয়ায় কাজ বন্ধ। তাছাড়া করোনায় লকডাউনকেও দুষছেন তিনি। তবে শীঘ্রই কাজ শুরুর কথা জানান।

স্কুলের ভবন নির্মাণ কাজ চলাকালীন পাঠদান যাতে ব্যহত না হয় সে লক্ষ্যে অস্থায়ী শ্রেণীকক্ষ নির্মাণের জন্যও প্রকল্পে আলাদা বরাদ্দ দেওয়া হলেও করা হয়নি কোন ভবন।

কিন্তু সরজমিনে দেখা যায়, পুরোনো স্কুলের বাঁশের বেড়া দিয়ে দাঁয়সারা একটি কক্ষ নির্মাণ করা হয়েছে যার চাল ফুটো, নেই কোন দরজা-জানালা। অভিযোগ আছে সন্ধ্যা নামলেই এখানে বসে মাদকের আড্ডা।

রামু আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিভাষ বড়ুয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল খোলার ঘোষণা দিলেও আমরা অনিশ্চতায় দিনপার করছি। ক্লাস করানোর জন্য কোন কক্ষ নেই। বারবার তাগাদা দেওয়ার পরেও কেউ কিছু করছে না। অনেক শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে পড়বে।

স্কুলের ভবন না থাকা নিয়ে স্কুলটির ছাত্র-ছাত্রীদের অবিভাবকদের মধ্যেও দেখা দিয়েছে বিরূপ প্রতিক্রিয়া। দ্বীপান্বিতা বড়ুয়ার দুই মেয়ে পড়েন এই স্কুলে। তিনি জানান, দীর্ঘদিন করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে লেখাপড়া। এখন স্কুল খুললেও ভবন নেই পাঠদানের। সরকারি স্কুল নির্মাণে অনিয়ম মানা যায় না।

রামু উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশল অধিদপ্তরের একটি সূত্র জানান, ঘুষের বিনিময়ে নামসর্বস্ব কিছু প্রতিষ্ঠান কাজ ভাগিয়ে নেন। কিন্তু টাকার অভাবে তারা কাজ নিয়মিত রাখতে পারেন না।

এদিকে রামু আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের অনিশ্চয়তা ও প্রাথমিক পাঠদান কক্ষ না থাকায় ১২ সেপ্টেম্বর থেকে আদৌ পাঠদান শুরু হবে কিনা তা নিয়ে আছে শঙ্কা। স্থানীয় অবিভাবকদের দাবী দ্রুত সময়ের মধ্যে যাতে পাঠদান স্বাভাবিক করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs