মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১০:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কক্সবাজারে ‘মাদক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলনের গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত রামুতে ৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অংশগ্রহনে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা উদ্বোধন ঢাকায় এসি বিস্ফোরণ: জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন মহেশখালী মাতারবাড়ীর আবদুল মান্নান মহেশখালীতে টমটম চাপায় দিনমজুর রফিক গুরুতর আহত শফি অবৈধ মালামাল নিয়ে দুবাই কারাগারে বন্দি মোরশেদ এ শিরোনামে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিভ্রান্তিমুলক সংবাদের প্রতিবাদ আলোকিত মেধাবিকাশ স্বর্ণপদক বৃত্তি পরীক্ষায় মহেশখালী কে.জি এর শিক্ষার্থী আলিয়া ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকা উখিয়ায় একাধিক অস্থায়ী পশুরহাট! ওয়াটারকিপার অ্যালায়েন্সের নির্বাহী পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হলেন শরীফ জামিল। নিখোঁজ সংবাদ কিশলয় আদর্শ শিক্ষা নিকেতন এর ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন

ধলঘাটায় প্রস্তাবিত এল.এন.জি টার্মিনাল স্থানান্তরের দাবিতে মানববন্ধন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪১ বার পঠিত

নুরুল করিম,মহেশখালী।
কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার ধলঘাটা ইউনিয়নের প্রায় ২০৫ একর জমিতে এল.এন.জি টার্মিনাল স্থাপনের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন ধলঘাট চরাঞ্চলের মানুষ। এ উপলক্ষে বুধবার (১৭ ই এপ্রিল) সকালে ধলঘাটা ইউনিয়ন উন্নয়ন বসতভিটা রক্ষা কমিটি’র উদ্যোগে মহরীঘোনা সরকারি প্রাথমিক সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে এলাকার হাজারও নারী-পুরুষ এতে অংশগ্রহণ করে।

মানববন্ধনে এলাকাবাসী জানান,
মালিকানা হরণ করে ধলঘাট এলাকায় প্রায় ২০৫ একর জমিতে বাপ-দাদার আমলের স্কুল, মাদ্রাসা, কবরস্থান ও বসতভিটায় প্রস্তাবিত এল.এন.জি টার্মিনাল স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে। এতে জমিজমা হারিয়ে নিঃস্ব হওয়ার পথে ধলঘাটাঞ্চলের ৬/৭ হাজার মানুষ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী ও ভূমিমন্ত্রী বলেছেন, আবাদী জমি নষ্ট করে শিল্পকারখানা করা যাবে না; কিন্তু স্থানীয় প্রশাসন জমিগুলো অনাবাদী দেখিয়েছে। তাদের দাবি, হয় তাদের মেরে ফেলুক, নয়তো এ প্রস্তাবিত এল.এন.জি টার্মিনাল কোহলিয়া নদীর পূর্বদিকে কালীগঞ্জ মৌজায় স্থাপনের জোর দাবী জানান।

মানববন্ধনে যৌক্তিক দাবীর পক্ষে একাত্তা পোষন করে বক্তব্য রাখেন, ধলঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হায়দার, ধলঘাটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেম্বার আমান উল্লাহ, নুরুল আবছার মনি, মোহাম্মদ শওকত, কাজী আরমান, মহিলা মেম্বার মিরাজু আকতার ও হামিদা আকতার’সহ সর্বস্তরের জনগণ অংশগ্রহণ করেন

এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীকি মারমা মুঠোফোনে বলেন, ওই জমিগুলো খাস বলে জানি, তবে ফসলী কি-না, তা তদন্ত করে দেখতে হবে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন করা হবে বলে তিনি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs