মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০২:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
৪৫ কোটি টাকার রাস্তা আড়াই বছরেও শেষ হয়নি ৫ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার খুটাখালীতে স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সের সীমানা-প্রাচীরের একাংশ ভেঙ্গে পড়েঃআরো ভাঙ্গার সম্ভাবনা ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত! মাতারবাড়ীর “তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুন্নিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসা”সুপার নিয়ম মানছেনা,রশিদ না কেটে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ! ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়, আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা কুতুবদিয়ায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ৬ শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ কক্সবাজার জেলা শাখার পরিচিতি সভা সম্পন্ন ঈদগাঁওতে ফার্নিচার কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড -কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে ২ শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের অভিযোগ, অভিযুক্ত শিক্ষক লাপাত্তা ট্যুরিস্ট পুলিশের অভিযানে ছিনতাইকারী সহ আটক-৮

টেকনাফ উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১
  • ২৩৩ বার পঠিত

এম এ হাসান,টেকনাফ।

টেকনাফ উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শাহ নেওয়াজের বিরুদ্ধে টেকনাফ সোনালী ব্যাংক শাখায় অভিনব কায়দায় ভুয়া বিল ভাউচার দাখিল করে ৩৩ লাখ ৬১ হাজার ৩৮১ টাকা আত্মসাতের প্রচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রুখে দিয়েছে সোনালী ব্যাংক।

এ বিষয়ে টেকনাফ সোনালী ব্যাংক শাখার ব্যবস্থাপক আবুল মঞ্জুর নিজে বাদী হয়ে টেকনাফ মডেল থানায় ৬ জুলাই টেকনাফ উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শাহ নেওয়াজ কে প্রধান আসামি করে ৩ জনের বিরুদ্ধে এজাহার দাখিল করেছেন

সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক আবুল মঞ্জুর স্বাক্ষরিত টেকনাফ মডেল থানায় দেওয়া এজাহার সুত্রে জানা যায় গত ২৯,০৬,২০২১, ইং তারিখ অফিস চলাকালীন সময়ে সোনালী ব্যাংক কক্সবাজার শাখার একটি ভুয়া বিল কক্সবাজার জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের কর্মচারী শাহাব উদ্দিনের পেনশনের টাকা উত্তোলনের জন্য টেকনাফ উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মো: শাহ নেওয়াজ তার অফিসের এক কর্মচারীর মাধ্যমে পাঠান। উক্ত বিলে বেশি টাকা হওয়ায় প্রাপককে ফোন করা হলে এক মহিলা ফোনটি রিসিভ করেন। তিনি বলেন যে আমি শাহাব উদ্দিনের কিছুই না বলে কেটে দেন । এর পর আমার সন্দেহ হলে আমি কক্সবাজার জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করি।
তার অফিসের শাহাব উদ্দিন নামের কোন কর্মচারী পেনশনে গিয়েছে কিনা তিনি উত্তরে বলেন শাহাব উদ্দিন নামে আমার কোন কর্মচারী ইতি মধ্যে পেনশনে যায়নি। এর পর সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক আবুল মঞ্জুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, প্রদত্ত বিল ভাউচারটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আত্মসাতের প্রচেষ্টা রুখে দেওয়া হয়। তিনি বলেন অভিযুক্ত সুচতুর হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শাহ নেওয়াজ বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নিজ এলাকা থেকে তিনি পলাতক রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এ দিকে আত্মসাতের গোমর ফাঁস হওয়ার পর টেকনাফ উপজেলা হিসাব রক্ষক অফিসের কমরত কর্মচারীরা আতঙ্কের মধ্যে রযেছে বলে সুত্রে জানা যায়। এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মর্কতা মো: পারভেজ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি শুনেছে বলে জানান । এ বিষয়ে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মো:শাহ নেওয়াজের কাছে জানত চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি টেকনাফ সোনালী ব্যাংকই জানেন, আমি এ বিষয়ে বক্তব্য দিতে গেলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। এই ঘটনা নিয়ে টেকনাফ টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs