রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৮:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মহেশখালী প্রেস ক্লাবের সভাপতি পারভেজ এর মায়ের সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল কুতুবদিয়ায় পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু সাজ্জাদের রক্তের দাগ না শুকাতেই উখিয়ায় আবারো ড্রেজার মেশিনের পাহাড় কর্তন, ড্রেজার মেশিন জব্ধ! লামায় রাস্তা মেরামতের কাজ করলো ইয়াংছা সিএনজি সংগঠনের সদস্যরা! ৩৬ বছর ইমামতির পর বর্ণাঢ্য আয়োজনে ইমামের রাজকীয় বিদায় রামু মনিরঝিলের ক্ষতিগ্রস্ত সেতু ও রাস্তা পরিদর্শনে গিয়ে সংস্কারের উদ্যোগ হুইপ কমলের ফরহাদকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি, কক্স—মিডিয়া এসোসিয়েশনের নিন্দা মহেশখালীতে ব্র্যাকের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ ও গাছের চারা বিতরণ মাছ ধরে বাড়ি ফেরা হলো না মাতারবাড়ীর কবির আহমদের মাতারবাড়ী সমাজ সেবা ফাউন্ডেশন সংগঠনের আত্মপ্রকাশ,অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

কক্সবাজারে বেড়েছে শিশুশ্রম-শৈশব হারা হচ্ছে শিশুরা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৪৬ বার পঠিত

সরওয়ার সাকিবঃ

কক্সবাজারে বেড়েছে শিশুশ্রম। এছাড়াও স্কুল বন্ধ থাকায় পরিবারের অভাব মেটাতে আয় রোজগারের পথ বেছে নিয়েছে শৈশবকালের শিশুরা। তারা গার্মেন্টস, ওয়ার্কশপ, রিকশাচালক, এছাড়াও হোটেলসহ বিভিন্ন কাজে জড়িয়ে পড়ছে। তেমনি এক শিশু মোহাম্মদ আজিজ। বয়স মাত্র ১০ বছর। পিতা আব্দুল আজিজ। কক্সবাজার শহরের ঘোনার পাড়ার বাসিন্দা। যে বয়সে তার খেলাধুলা করার কথা সহপাঠীদের সাথে স্কুলে যাবার কথা সে সময়ে সে পরিবারের হাল ধরেছে। কক্সবাজার শহরের গুমগাছতলা দিয়ে যাওয়ার সময় আব্দুল আজিজ কে চোখে পড়ল সে রিকশা চালাচ্ছে। তার কাছে জানতে চায় তার এই শিশুশ্রমে আসার কারণ।সে বলে করোনার লকডাউনের পর থেকে সে রিকশা চালায়। পরিবারের ভরণপোষণের জন্য টাকা দিতে হয়। তারা তিন ভাই তিন বোন সহ ৮ জনের একটি পরিবার। সেই সকাল থেকে রিকশা নিয়ে বের হয় রাতে বাসায় ফেরে। তার বয়স এত কম যে ঠিক মত কথা বলার ভাষা ও জানে না। কিন্ত পরিবারের অভাব মেটাতে যাত্রী নিয়ে রিক্সার চাকা ঘুরিয়ে যেতে হয় গন্তব্যে। সে কি না বুঝবে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে এবং রিকশা চালানো নিয়ম সম্পর্কে । রিকশা চালানোর সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এরকম মোহাম্মদ আজিজ এর মত অনেক শিশু রয়েছে যারা তাদের শৈশব হারিয়ে শিশুশ্রমে লিপ্ত হয়েছে। শৈশবকালে ছেলে-মেয়েরা পুরোপুরি গঠিত হয় না, তাই তারা শারীরিকভাবে আরও দুর্বল। যারা কাজ করতে বাধ্য হন তারা প্রায়শই অসুস্থ হয়ে পড়ে, দুর্ঘটনা ঘটে এবং তাদের স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্যভাবে খারাপ করে দিয়ে ফলাফলগুলি প্রদান করেন। কর্মক্ষম শিশুদের স্বাস্থ্যের উপর পরিণতিগুলি কেবল শারীরিক নয়। মানসিক স্তরে, তারা নেতিবাচক প্রভাবও ভোগ করে, অকালপূর্বে পরিপক্ক হওয়ার প্রয়োজন থেকে শুরু করে এবং শৈশবকালীন সাধারণ ক্রিয়াকলাপগুলি বিকাশ করতে সক্ষম হয় না। স্থানীয় সচেতন মহল বলেন যেকোনোভাবেই শিশুশ্রম বন্ধ করতে হবে। তবে শিশুশ্রম বন্ধ করার জন্য বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা আবশ্যক।” সবার আগে প্রয়োজন শিশুদের প্রতি আমাদের সহানুভূতিশীল মনোভাব, তাদের দেহ-মনের সুষ্ঠু বিকাশে আমাদের আরও দায়িত্বশীল হতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs