শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের পরীক্ষা স্থগিত মহেশখালীতে পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার কক্সবাজারে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ,ভাংচুর অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সকল ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কুতুবদিয়ার মাছ ধরার ট্রলার ডুবি: মাঝিমাল্লা উদ্ধার মহেশখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গ্যারেজ মালিক মামুনের মৃত্যু মাতারবাড়ীতে ৫শ মেগাওয়াটের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র করবে ইন্দোনেশিয়া “অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে” উত্তরণ মডেল স্কুল ও কলেজে কিশোর কিশোরীদের দক্ষতা উন্নয়নে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে জলবায়ু ন্যায্যতা ও লিঙ্গ ভিত্তিক সহিংসতা বিষয়ে সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত রামুতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নতুন ভবন ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন হুইপ সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি

কক্সবাজার ফিরে প্রথম কাজ হবে শতকোটি টাকা ব্যয়ে পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষণীয় মসজিদ নির্মাণ করা –সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৬ মে, ২০২১
  • ২৯২ বার পঠিত

সংবাদ বিজ্ঞিপ্তি।
বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে ঢাকাস্থ সরকারি বাসায় বিশ্রামে রয়েছেন কক্সবাজার-৩(সদর-রামু) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। সম্পুর্ণ সুস্থ হয়ে এমপি কমল তাঁর নির্বাচনী এলাকা কক্সবাজার-রামু পৌঁছেই একশত কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার শহরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ জায়েদ মসজিদ ও দিল্লী জামে মসজিদের অনুকরণে ব্যতিক্রমধর্মী পৃথিবীর অন্যতম দৃষ্টিনন্দন একটি মসজিদ নির্মাণকাজ শুরু করার অভিমত ব্যক্ত করেছেন। এনিয়ে তাঁর একটি প্রতিবেদন ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।
মসজিদ নির্মাণ বিষয়ে আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি ডিও প্রেরণ করেছেন। ০০০.২৯৬.০৫.২০২১.১৬১৮ স্মারকে প্রেরিত পত্রে এমপি কমল উল্লেখ করেন তাঁর নির্বাচনী এলাকা ২৯৬,কক্সবাজার- ০৩ (সদর-রামু) আসনের কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ ময়দানটি আধুনিককরণ প্রয়োজন। এ ময়দান কয়েক বছর আগেও সম্পূর্ণ ঘাস দ্বারা আবৃত ছিল। বর্ষা মৌসুমে অনেক সময় কাদার কারণে মুসল্লিরা এখানে নামাজ পড়তে পারেনি। এমনকি ২০২০ সালের ঈদের জামাতেও অন্তত ৫০ হাজার মানুষ বৃষ্টিতে ভিজেছে। পৌরসভা প্রতিবছর ঈদে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা ব্যয় করে আংশিক অস্থায়ী প্যান্ডেল নির্মাণ করলেও মুসল্লিদের তুলনায় তা যথেষ্ট নয়।
আমি ২০১৭ সালে ৩০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়ে এ ঈদগাঁহ ময়দানে সীমানা দেওয়াল নির্মাণ করেছিলাম। ২০১৮ সালে ৫০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়ে এ ময়দানের এক তৃতীয়াংশ আরসিসি দ্বারা পাকা করেছিলাম।
ময়দানের মধ্যাংশে খোলা মাঠটি সংরক্ষণ রেখে পশ্চিম দিকে আনুমানিক ১২০০০ ফুটের একটি মসজিদ নির্মাণ করতে চাই এবং ময়দানের পার্কিংয়ের জায়গা সংরক্ষণ রেখে তোরণ নির্মাণসহ চারদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ জায়েদ মসজিদ ও দিল্লী জামে মসজিদের অনুকরণে ব্যতিক্রমধর্মী দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা করতে চাই।
এটি নির্মিত হলে পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষনীয় একটি মসজিদে রূপান্তরিত হবে। যা স্থানীয় লক্ষাধিক মুসল্লিদের ঈদের নামাজ পড়তে সুবিধা হবে এবং পর্যটন নগরীর পর্যটকদের আকর্ষিত করবে। ইসলামী স্থাপত্য দেখে বিশ্বের শান্তিকামী মানুষেরা মুগ্ধ হবে। মসজিদটি দেশ-বিদেশের মূল্যবান ক্রিষ্টাল পাথর ও মার্বেল দিয়ে সাজানো হবে। এর অর্থায়নে প্রায় ১০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে, যা নিজসহ স্থানীয় দানবীর ও দেশ বিদেশের বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহীত হবে। তিনি উক্ত মসজিদ নির্মাণে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।
অন্যদিকে গত কয়েকদিন আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি’র লেখা -‘কক্সবাজার ফিরে আমার প্রথম কাজ হবে পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষণীয় মসজিদ নির্মাণ করা’। এর অংশ বিশেষ উল্লেখ করা হলো–
আল্লাহর রহমতে ও আপনাদের দোয়ায় আমার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ হলেও করোনা পরবর্তী শারিরীক দূর্বলতা রয়ে গেছে। এখন কথা বলতে অসুবিধা হয় আর হাঁটতে অনেক কষ্ট হয়। ডাক্তার এক মাসের পূর্ণ বিশ্রাম নিতে বলেছেন।
আমার জন্য হাজার হাজার মুসল্লিরা দোয়া করেছেন। শত শত কোরআন খতম করেছেন। আলেম ওলামারা মসজিদে মসজিদে দোয়া করেছেন। বিভিন্ন বাড়ি ঘরে অনেকেই রোজা রেখেছেন। বিভিন্ন মন্দিরে মন্দিরে হিন্দু-বৌদ্ধরা আমার সুস্থতার জন্য প্রার্থনা করেছেন। বৌদ্ধ ভান্তে ও হিন্দু পুরোহিতরা মন্দিরে মন্দিরে আশীর্বাদ করেছেন। যা কখনো ভূলার নয়। আমি সকলের কাছে কৃতজ্ঞ।
অসুস্থতাকালে যারা দেখতে গেছেন, ফোনে খবরা-খবর নিয়েছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি আরো উল্লেখ করেছেন- আমি যতদিন বেঁচে আছি কক্সবাজারবাসীর সেবা করে যাব। সুস্থ হতে আমার আরো কয়েকদিন লাগতে পারে। একটু সুস্থ হলেই চলে আসব কক্সবাজারে।
কক্সবাজারে এসে আমার প্রথম কাজ হবে পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষণীয় একটি মসজিদ নির্মাণ শুরু করা। ইনআশাল্লাহ পৃথিবীর অন্যতম দৃষ্টিনন্দন আকর্ষণীয় এ মসজিদ নির্মাণ হলে স্থানীয় মুসল্লিদের সুবিধার পাশাপাশি দেশি বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ করবে। সাগরের সৌন্দর্যের সাথে নতুন একটি আকর্ষণ যোগ হবে কক্সবাজারে। মসজিদটি পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর ও মূল্যবান পাথর দিয়ে সাজানো হবে ইনআশাল্লাহ। মসজিদের নকশা আঁকার জন্য একজন বিখ্যাত স্থপতিকে দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার পৌঁছে সর্বপ্রথম জেলার বিশিষ্ট আলেম ওলামা, বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রশাসনিক, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সাথে মসজিদ নির্মাণ বিষয়ে মতবিনিময় করবেন। এ বিষয়ে এমপি কমল সকলের সহযোগিতা কামনা করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs