সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০১:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মহেশখালীতে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি মাতারবাড়ীতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীনের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ মহেশখালী প্রেসক্লাবে প্রয়াত সাংবাদিক শফিকুল্লাহ খানের স্মরণে দোয়া মাহফিল কক্সবাজার পৌরশহরে বাদশাঘোনায় পাহাড় ধ্বসে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রীর মুৃত্যু! ছোট মহেশখালীতে নিখোঁজ মা-ভাইয়ের সন্ধান পেতে সন্তানের আকুতি খোন্দকারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত বর্ষার শুরুতেই কক্সবাজারের উখিয়ায় দুটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড়ধস,নিহত-১১ কক্সবাজারে ‘মাদক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলনের গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত রামুতে ৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অংশগ্রহনে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা উদ্বোধন ঢাকায় এসি বিস্ফোরণ: জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন মহেশখালী মাতারবাড়ীর আবদুল মান্নান

আইনি জটিলতা কাটিয়ে বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত

রিয়াজ উদ্দিন
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩১ মার্চ, ২০২৪
  • ১৬২ বার পঠিত
বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতির নির্বাচনের ভোট কেন্দ্র থেকে তোলা ছবি।

রিয়াজ উদ্দিন:

 

দীর্ঘদিনের আইনী জটিলতা কাটিয়ে উৎসব মুখর পরিবেশে কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকার সমাজকল্যাণ মূলক সংগঠন “বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতি” এর দ্বি—বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (৩০ মার্চ) সকাল ৯.০০টায় বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতির কার্যালয়ে নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল থেকেই প্রশাসনের কড়া নজরদারি ছিল এই নির্বাচনে। বৃহত্তরপাহাড়তলীবাসীকে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেয়ার লক্ষ্যে আনসার—ভিডিপি ও প্রতিরক্ষা বাহিনী এতে যথাযথ দায়িত্ব পালন করেন।

ভোটগ্রহণের শুরুতেই নির্বাচনী কার্য্যক্রম প্রদর্শন করেন কক্সবাজার পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর জাহেদা আক্তার। তিনি বলেন, এই নির্বাচনটি অনেকদিন ধরে হওয়ার কথা ছিল। বিভিন্ন আইনি জটিলতার কারণে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়েছে। প্রতিকূলতা কাটিয়ে আজ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আশা করছি শেষ পর্যন্ত সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন শেষ হবে।

বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতির নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোঃ নুরুল হুদা বলেন, সকাল ৯.০০টা থেকেই এই সমিতির নির্বাচন শুরু হয়ে বিকাল ৪.০০টায় শেষ করি। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোন ভোটার না থাকায় নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করি। পরে নির্বাচন কমিশনের সকল সদস্য, পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয়দের সহায়তায় ভোট গণনা, ভোট যাচাইবাছাইয়ের মাধ্যমে ফলাফল প্রকাশ করি।

এ নির্বাচনে ছাতা প্রতীক নিয়ে সভাপতি পদে মোঃ ইউসুপ সওদাগর ও দেওয়াল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে সাজ্জাদ হোসেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
এ নির্বাচনে ছাতা প্রতীকে মোট ২৬৭ ভোটের মধ্যে ১৮৬টি ভোট পেয়ে মো ইউসুপ সওদাগর সভাপতি নির্বাচিত হয়। তার নিকটতম প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন পেয়েছে ৬ ভোট। অন্যদিকে তালা—চাবি প্রতীকে ১৯০ টি ভোট পেয়ে শেখ সেলিম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং তার নিকটতম প্রার্থী ফুটবল প্রতীকে জালাল হোসেন পেয়েছে ৬ ভোট। অর্থসম্পাদক পদে মোবাইল ফোন প্রতীকের মাস্টার মোঃ রফিক ১৭৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয় এবং তার নিকটতম প্রার্থী মঞ্জুর আলম পেয়েছে ১৫ ভোট। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ইলিশ মাছ প্রতীকের আবু নাসের ১৬০ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয় এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মটর সাইকের প্রতীকের আনোয়ার হোসেন ৩০ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়। নির্বাহী সদস্য পদে ইউছুফ—সেলিম প্যানেলের ৬জন ও সাজ্জাদ—জালাল প্যানেলের ১জনসহ মোট ৭ জন প্রার্থী এতে অংশগ্রহণ করে। এই পদে ইউছুফ—সেলিম প্যানেলের চশমা প্রতীকের মাস্টার জসিম উদ্দিন ১৯৩ ভোট পেয়ে নির্বাহী সদস্য পদে বিজয়ী লাভ করে। এছাড়া উক্ত পদে ইউছুফ—সেলিম প্যানেলের হাতি প্রতীকের কে এম নেছারুল করিম পেয়েছে ১৯২ভোট, ত্রিকেট ব্যাট প্রতীকের মুজিবুর রহমান পেয়েছে ১৮৮ভোট, মই প্রতীকের নুরুল আলম পেয়েছে ১৮৭ভোট, দোয়াত কলম প্রতীকের ছাবের আহমদ পেয়েছে ১৮৫ভোট, কলসি প্রতীকের মৌলানা আনোয়ার হোসেন পেয়েছে ১৮৩ভোট। অন্যদিকে সাজ্জাদ—জালাল প্যানেলের গোলাপ ফুল প্রতীকের আবদুল করিম(২) পেয়েছে ৩২ভোট।
এছাড়া বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় সিনিয়র সহ—সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছে মোহাম্মদ রফিক, সহ—সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছে জাফর আলম, যুগ্ন—সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছে নুরুল আক্কাস পাশা, দপ্তর সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছে মোঃ সোহেল রানা, প্রচার সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছে ছৈয়দ নুর জুনু। ইউছুফ—সেলিম প্যানেলের ১৫সদস্যবিশিষ্ট কমিটির মধ্যে নির্বাহী সদস্য পদে হাতি প্রতীকের কে এম নেছারুল করিম, ত্রিকেট ব্যাট প্রতীকের মুজিবুর রহমান, মই প্রতীকের নুরুল আলম, দোয়াত কলম প্রতীকের ছাবের আহমদ ও কলসি প্রতীকের মৌলানা আনোয়ার হোসেন নির্বাচিত হয়।

সাধারণ সম্পাদক পদে নিবার্চিত হয়ে শেখ সেলিম বলেন, আজ আজকে বহুল প্রতিক্ষিত বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতি। এটি কক্সবাজারের একটি ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন। পর পর তিনবারের নিবার্চনের তারিখ ঘোষনার পর অবশেষে আজকে তৃতীয় তম বারে নিবার্চন কমিশনের মাধ্যমে আমরা ইউছুপ—শেখ সেলিম প্যানেলের ১৫সদস্য বিশিষ্ট পূণার্ঙ্গ কমিটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে নিবার্চিত হয়েছি। আজকে এই বৃহত্তর পাহাড়তলীতে যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে প্যানেলের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। কিছু কুচক্রী মহল ব্যক্তিগত স্বার্থ আদায়ের লক্ষ্যে নির্বাচন বানচাল করতে চেয়েছিল। নির্বাচন না হওয়ার জন্য তারা উচ্চ আদালতে মামলা করেও কোন প্রতিফল ঘটাতে পারেনি। বিজ্ঞ আদালত নির্বাচনের পক্ষে রায় ঘোষনা করেছেন। যার সুবাদে আজ পাহাড়তলীবাসী তাদের প্রত্যাশিত ব্যক্তিকে ভোট দিতে পেরে নিজেদের নাগরিক অধিকার আদায় করেছে। আমি অত্র পাহাড়তলীবাসী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রশাসন, নিবার্চন কমিশনার, সাংবাদিক ও কমিটির সকল সদস্যদের প্রতি আবারো ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন, যাতে সকলে সম্মিলিত উদ্যোগে পাহাড়তলীবাসীর আমানত ও বিশ^াস রক্ষা করতে পারি।

এছাড়া বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর পাহাড়তলী সমিতির সাবেক সভাপতি, ৭নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর, ভোটার ও প্রার্থীগণ। ফলাফল প্রকাশের পর নির্বাচিত প্যানেলের ১৫সদস্যকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান পাহাড়তলীবাসীর স্থানীয় জনসাধারণ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs